আজ ২৪শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ৯ই ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

ইয়াবা সিজানের অপকর্মে অতিষ্ঠ এলাকাবাসী, মামলা থাকার পরেও নীরব সন্দ্বীপের পুলিশ প্রশাসন ও এম,পি মিতা


বর্তমান সন্দ্বীপের ইয়াবা সম্রাট, খুনসহ বহু মামলার আসামী দিনের পর দিন নানাবিধ অপরাধ কর্মকাণ্ড বাড়িয়েই চলছে।
কাছিয়াপাড়ের সিজান প্রকাশ ইয়াবা সিজান, এত সব অপরাধের পরেও আরামসে ঘুরে বেড়াচ্ছে সন্দ্বীপ থানার নাকের ডগায়।
জানা গেছে, সিজানকে আইনের আওতায় আনার ব্যাপারে এম পি মিতার অসহযোগিতা, অবহেলা ও সন্দ্বীপ থানাকে সিজানের প্রতিমাসে মোটা অংকের ঘুষ প্রদানের মাধ্যমে দিনের পর দিন নিশ্চিন্তে ইয়াবা ব্যবসা সহ নানাবিধ অপরাধ কর্মকাণ্ড চালিয়ে যাচ্ছে সে।
সিজানের অপকর্মে অতিষ্ঠ হয়ে তার অপরাধের লাগাম টেনে ধরতে সন্দ্বীপ থানার এবং সন্দ্বীপের এম পির দৃষ্টি আকর্ষণ করছে ভুক্তভোগীরা। সম্প্রতি নারী কেলেঙ্কারিতে নতুন রেকর্ড করার পাশাপাশি ইভটিজিং, ব্ল্যাকমেইল সহ লুইচ্ছামিতেও যথেষ্ট সংখ্যক নাম রয়েছে তার।
কাচিয়াপাড় ১নং ওয়ার্ডের নুর আলম বলির কুলাঙ্গার সন্তান হিসেবে খ্যাত ইয়াবা সিজান দীর্ঘদিন যাবত এলাকাতে চাঁদাবাজি, চুরি-ডাকাতি করে ডজন খানেক মামলা মাথায় নিয়ে এলাকাতে এখনও আছে বহাল তবিয়তে। এছাড়াও এলাকার কোন প্রবাসী দেশে আসলে সিজানের সাঙ্গু-পাঙ্গু ও কাজের বুয়া রেখার (রেখানি) ছেলে শরীফকে সাথে নিয়ে ঐ প্রবাসীর উপর চাঁদাবাজির জন্য চলে নানান নির্যাতন, শেষ পর্যন্ত দাবী করা হয় মোটা অংকের চাঁদা।
গত ২১ – ৮ -২০ এলাকার ফখরুলের ছেলের বউয়ের ঘরে ডুকে জোরপূর্বক অনৈতিক কাজ করতে গিয়ে ফখরুলের ছোট ছেলে করিমের হাতে ধরাপড়ে সিজান। তাৎক্ষানিকভাবে করিমকে অস্ত্র ঠেকিয়ে পালিয়ে যেতে সক্ষম হয় ধর্ষণের চেষ্টাকারি লম্পট সিজান।
এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে ফখরুলের পুত্রবধু বাদী হয়ে সন্দ্বীপ থানায় একটি মামলা করে। সিজানের অপরাধের বিরুদ্ধে এমন মামলার সংখ্যা বাড়তে থাকলেও অজানা কারণে গ্রেফতার হচ্ছে না ইয়াবা সিজান। শুধু তাই নয় এই ঘটনার পূর্বে কুলাঙ্গার সিজান আবদুল্লা পন্ডিতের বাড়ীর প্রকাশ কুচ্ছারগৌ বাড়ীর সাহেব উদ্দিনের মেয়েকে অস্ত্রের মুখে জোর করে ধর্ষণ করে এবং মোবাইলে ধর্ষনের ভিডিও ধারণ করার পর, ধারণকৃত ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যেমে ভাইরাল করার ভয় দেখিয়ে বার বার মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নেয়।
সিজান তার বাহিনী নিয়ে সার্বক্ষণিক অস্ত্র হাতে নিয়ে এলাকাতে মহড়া দিয়ে চলছে বলে এলাকাবাসী তার বিরুদ্ধে ভয়ে মুখ খুলছেনা।
এলাকার একজন স্কুল শিক্ষক তার অত্যাচারের বিরুদ্ধে কথা বললে সিজান ঐ শিক্ষককে মেরে ফেলার হুমকি দেয়।
এছাড়া বাউরিয়া কুচিয়ামোড়া ৯ নং ওয়ার্ডের নুর উল্লাহ (নোরল্লা) মাঝির বাড়ির আলমগীরকে মেরে ফেলার হুমকি দিলে, আলমগীর দীর্ঘদিন বসত বাড়ি ছেড়ে অন্যস্থানে লুকিয়ে থাকতে বাধ্য হয় বলে জানা গেছে।
তার অত্যাচার থেকে বাদ পড়েনি নিজ বাড়ীর ওমান প্রবাসী শামীমও। সিজান শামীমের কাছ থেকে নগদ ২০ হাজার টাকা ও মোবাইল চিনিয়ে নেয়। এরপর শারীরিক নির্যাতন করে ভয় দেখানোর কারণে শামীমও মুখ খুলেনি। পরে ঘটনা জানাজানি হলে শামীমের পরিবারের উপর চলে অমানবিক নির্যাতন এবং শামীম দেশে আসলে তাকে জানে মেরে ফেলার হুমকি দিয়ে আসছে সিজান।
অত্র এলাকার জনসাধারণ প্রশাসনের কাছে উপযুক্ত বিচারের দাবী করছে এবং এই বিষয়ে সন্দ্বীপ থানার পুলিশের হস্থক্ষেপ কামনা সহ এম,পি মহোদয়ের সদৃষ্টি আশা করছে ।
পর্ব –১
চলবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই ক্যাটাগরির আরও দেখুন