আজ ২০শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ৫ই ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

লজ্জা ও মুনুষত্বহীন হয়ে বেঁচে থাকার মানে কি 

 

সাংবাদিক শিমুল তালুকদার।।

মানুষকে কেন শৃষ্টির শ্রেষ্ঠ বলা হয়?
আমার জানামতে, মহান আল্লাহ পাক তার সমস্ত শৃষ্টির মধ্যে একমাত্র মানুষের মধ্যেই বিবেক- বুদ্ধি বা মুনুষত্ব দিয়ে শৃষ্টি করেছেন। হয়তো বা এইজন্যই মানুষ শৃষ্টির শ্রেষ্ঠ।
আর মুনুষত্বে আঘাত লাগার বহিঃপ্রকাশ এর নাম হচ্ছে লজ্জা।
আমরা মানুষ। আমাদের ও একটা সমাজ আছে। আর এই সমাজের চার পাসে দৈনন্দিন জীবনে ঘটে যাচ্ছে অনেক কিছু। কোনো টা স্বাভাবিক, কোনোটা অস্বাভাবিক।
কোনোটা কল্পনিয় আবার কোনোটা অকল্পনীয়। এছাড়াও সহনীয়, অসহনীয়, দৃশ্য, অদৃশ্য বহু ঘটনাবলির মধ্য দিয়ে আমাদের জীবন যাত্রা।
মূল বিষয়ে ফিরে আসি।
বর্তমানে ধর্ষণ, আর বলৎকার এর মতো বহু ঘটনা ঘটে যাচ্ছে আমাদের সমাজে। দিন দিন জেন বেরেই চলছে। চার বছরের শিশু ধর্ষণের শিকার হচ্ছে, অথচ আমরা লজ্জা পাচ্ছিনা। মাদ্রাসায় পড়া কোমলমতি শিশু বলৎকার হচ্ছে অথচ আমাদের মুনুষত্বে আঘাত লাগছেনা।কি নৃশংস, পৈচাশিক মনবৃত্তি। বিষয়টি ক্রমেই যেন আমাদের কাছে অস্বাভাবিক থেকে স্বাভাবিক, অবিশ্বাস্য থেকে বিশ্বাস্য হতে শুরু করেছে। হায়রে, আমাদের মুনুষত্ব।
বহুদিন আগে পড়া একটি গল্পের কথা মনে পড়লো। পাঠকের উদ্দেশ্যে সেই গল্পটা তুলে ধরা হোল।।
একজন ন্যায় পরায়ন কাজী শাহেব ছিলেন। তিনি সমাজের ঘটে যাওয়া অপরাধের বিচার করে ন্যায় বিচারক হিসেবে পরিচিত ছিলেন। এবং তিনি বাড়িতে একটি কুকুর পুষতেন। তিনি যখনই কোনো বিচারের কার্যক্রমে ব্যাস্ত থাকতেন, কুকুরটাও পাসে ঘুরঘুর করত। এজন্য কাজী সাহেব কুকুরের ভাষা বোঝার জন্য একজন লোক নিযুক্ত করেছিলেন।
একদিন খুব সকালে কাজী সাহেবের বাড়ীতে অনেক লোকের সমাগম।
কাজী সাহেব কি ব্যাপার জানতে চাইলে এক মহিলা বললেন হুজুর আপনার দরবারের অমুক প্রহরী আমাকে ধর্ষণ করেছে। কাজী সাহেব তৎক্ষনাৎ ডেকে পাঠালেন সেই প্রহরী কে।
প্রহরী হাজির হতেই কাজী সাহেবের প্রশ্ন, এই মহিলা যা বলছে সেটা কি সত্য। জী হুজুর সত্য।
কাজী সাহেব প্রচন্ড রেগে গিয়ে ধর্ষকের উদ্দেশ্যে বললেন, তুই একটা জানোয়ার। কঠিন বিচার হবে তোর।
তখন হটাৎ কুকুটি ভয়ানক চিৎকার শুরু করে লাফালাফি করতে লাগলো। কাজী সাহেব এর কারণ জানতে চাইলে কুকুরের ভাষা বুঝতে পারা সেই লোকটি বললেন হুজুর, আপনি ঐ প্রহরী কে ধর্ষক বলায় কুকুর টি খুব লজ্জা পেয়েছে। আর তীব্র প্রতিবাদ জানীয়ে বলছে, মহারাজ, আমরা কি এতই খারাপ যে, ঐ ধর্ষককে আমাদের সাথ তুলনা করছেন।।
ছাত্র জীবনে আমি এয়ার গান দিয়ে প্রচুর পরিমাণ বিভিন্ন রকমের পাখী শিকার করতাম। তখন জেনেছি, ঘুঘুর নাকি পিত্তি নেই, আর বকের গিলা নেই,
আর আমার, লজ্জা ও মুনুষত্ব নেই।
নির্লজ্জ ও মুনুষত্বহীন হয়ে বেঁচে থাকার মানে কি,
সেটাও আমার জানা নেই।।।
লেখক
সদরপুর উপজেলা প্রেস ক্লাবের সভাপতি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই ক্যাটাগরির আরও দেখুন