আজ ১৩ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৮শে নভেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

বাগেরহাটের স্কুল শিক্ষকের নামে যৌতুক মামলা

বাগেরহাট প্রতিনিধিঃ

যৌতুক নিরোধ আইনের ৩ ধারায় মামলা হয়েছে বাগেরহাটের এক স্কুল শিক্ষকের নামে। মামলাটি দায়ের করেছেন তারই স্ত্রী মুকুল বেগম। পিরোজপুরের বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত-১ এ বাগেরহাট সরকারী বয়েজ স্কুলের শিক্ষক আবু মুছা খানকে আসামি করে তার ২য় স্ত্রী মুকুল বেগম এই মামলা দায়ের করেন। মামলা নং সি আর ৩২১ তারিখ ২৫/১০/২১ ইং। শিক্ষক আবু মুছা খান মোড়েলগন্জ উপজেলার চিংড়াখালী গ্রামের মৃত মোহাম্মদ আলী খানের ছেলে।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, শিক্ষক আবু মুছা খান গত ২০০০ সালের ২৮ ডিসেম্বর তার পূর্বের স্ত্রী – সন্তানদের তথ্য গোপন রাখিয়া মুকুল বেগমকে দুই লক্ষ টাকা মোহরানা ধার্যে ইসলামী শরীয়ত মোতাবেক বিবাহ করেন। বিবাহের পর হইতে সে বিভিন্নভাবে যৌতুকের জন্য চাপ প্রয়োগ ও মারপিট করে। তিন লক্ষ টাকা যৌতুক না দেওয়ার কারনে তার স্ত্রী মুকুল বেগমকে শ্বশুরালয়ে রাখিয়া শিক্ষক আবু মুছা খান তার বাগেরহাটের বাড়ীতে বসবাস করিতেছে।

শিক্ষক আবু মুছা খানের ২য় স্ত্রী মুকুল বেগম হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় এ প্রতিবেদককে জানান, স্ত্রী সন্তানের কথা গোপন রাখিয়া প্রতারনার মাধ্যমে আমাকে বিবাহ করে। বিবাহের পর হইতে তাহার বিভিন্ন কু – কৃর্তির কথা জানতে পারি। বিদ্যালয়ের একজন শিক্ষক হইয়াও তার আচরন আমার নিকট একেবারে সন্তোষজনক ছিলো না। সে তিন লক্ষ টাকা যৌতুকের জন্য আমাকে চাপ দিয়ে বলে তোর আগের ঘরের স্বামীর দেওয়া টাকা থেকে আমাকে তিন লক্ষ টাকা যৌতুক দিতে হবে। যৌতুক দিতে অস্বীকার করায় সে আমাকে গত ৭ অক্টোবর মারপিট করিয়া গুরুতর আহত করে।

অভিযোগ সম্পর্কে শিক্ষক আবু মুছা খান মোবাইলে জানান, মুকুল বেগম তাহার স্ত্রী ছিলো। শরীয়ত মোতাবেক তাকে বিবাহ করিয়াছে এবং শরীয়ত মোতাবেক তাকে তালাকও দিয়েছে। মুকুল বেগমের এসব অভিযোগ বানোয়াট ও অসত্য।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই ক্যাটাগরির আরও দেখুন